সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশে  বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ

ওবায়দুর রহমান, ক্যাম্পাস প্যতিনিধি:

করোনা ভাইরাস( কোভিড ১৯) সংক্রমণের কারণে সারাদেশের শিক্ষার্থীরা দুর্বিষহ ও সংকটময় জীবন অতিবাহিত করছে। রাজধানীর ঐতিহ্যবাহী কলেজগুলোর মধ্যে কবি নজরুল সরকারি কলেজ অন্যতম। এখানে ১৭ হাজার শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছে। কলেজের নামেমাত্র একটা ছাত্রাবাস রয়েছে। সেখানে খুবই অল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী থাকার সুযোগ থাকায় অধিকাংশ শিক্ষার্থীকে মেসে থেকে পড়ালেখা করতে হয়। যাদের বেশির ভাগই মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত, অসহায়, দরিদ্র কৃষক ও শ্রমিক পরিবারের সদস্য হওয়ায় টিউশনি করে পড়ালেখা সহ যাবতীয় খরচ বহন করতে হয়।

করোনা ভাইরাস(কোভিড ১৯) সংক্রমণের কারণে মার্চ মাস থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ফলে তাদের টিউশন এবং কোচিং থেকে আয়ের একমাত্র পথটি বন্ধ হয়ে যায়। ফলশ্রুতিতে শিক্ষার্থীদের মেসের ভাড়া পরিশোধ করা তাদের জন্য অসম্ভব হয়ে দাড়ায়।

অন্যদিকে  বাড়ি ও মেস মালিকরা ভাড়া পরিশোধের জন্য দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষার্থীদের উপর  অমানসিক চাপ প্রয়োগ করে আসছে। কোন কোন ক্ষেত্রে ভাড়া পরিশোধ না করতে পারলে পূর্বের বকেয়া পরিশোধ করে বাসা ছেড়ে দেওয়ার নোটিশও প্রদান করছে। সরকার থেকে কোনো নির্দেশনা না থাকায় বাড়ির ও মেস মালিকরা শিক্ষার্থীদের কোন কথাই কর্ণপাত করছে না।

১৭ জুন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ এর আহ্বায়ক মোঃজাহিদুল ইসলাম সরকার ও কলেজ প্রশাসনের কাছে জাতীয় সংকটে শিক্ষার্থীদের এই অসুবিধার কথা বিবেচনা করে মেস ভাড়া ৬০% মওকুফের জন্য একটা নির্দেশনা প্রদানের জন্য দাবি জানান।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ