রোহিঙ্গা গণহত্যার আন্তর্জাতিক আদালতের অন্তর্বর্তীকালীন রায় আজ।

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা চালানোর অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলার প্রাথমিক রায় আজ। গত ডিসেম্বরে হেগের আন্তর্জাতিক আদালতে মামলার শুনানি হয়। আদালতের রায়ে ন্যায় বিচার পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী।

২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে জাতিগত শুদ্ধি অভিযান চালায় মিয়ানমার। দেশটির সেনাবাহিনীর হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের মুখে জীবন বাচাতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা।

এই নৃশংসতাকে গণহত্যা আখ্যা দিয়ে গেল বছরের নভেম্বর মাসে হেগের আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মামলা দায়ের করে গাম্বিয়া। পরের মাসে মামলার শুনানি শুরু হয়। শুনানিতে মিয়ানমারের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি। গণহত্যা চালানোর অভিযোগে গাম্বিয়ার ঐ মামলার প্রাথমিক রায় দেয়া হতে পারে আজ। আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে ন্যায় বিচার পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী রোহিঙ্গারা। বলছেন, রায়ের মাধ্যমে মিয়ানমারের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি পেলে নিজ ভূমিতে ফিরে যাবেন তারা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অন্তর্বর্তী রায়ের মাধ্যমে গাম্বিয়ার করা মামলার বিষয়ে আদালতের মনোভাব বোঝা যাবে। ঐ মামলাকে কিছুটা হলেও রোহিঙ্গাদের হত্যা ও নির্যাতনের ন্যায়বিচারের উৎস হিসেবে বিবেচনা করা যাবে।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ