রাবিতে বিষয়কোড অর্ন্তভুক্তকরনের দাবি:  অনশনের ডাক শিক্ষার্থীদের

 

মারুফ হাসান, রাবি প্রতিনিধি: 

বাংলাদেশ সরকারী কর্ম-কমিশনে বিষয়কোড অন্তর্ভুক্তির দাবি পূরণ না হলে আমরণ অনশনের ঘোষনা দিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পপুলেশন সায়েন্স এন্ড হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় স্যার জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষনা দেন তারা।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়- বিভাগ প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ ২৪ বছর পরেও বিষয় কোড অর্ন্তভুক্তিকরনে ব্যর্থতাই এই আন্দোলনের প্রধান কারণ। আমাদের শিক্ষকগন ৪০ এবং ৪১তম বিসিএস এবং পিএসসিতে বিষয় কোন অর্ন্তভুক্তিকরন মৌখিক নিশ্চয়তা প্রদান করলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯ (রবিবার) বিভাগের শিক্ষার্থীরা ৪১তম বিসিএস এ বিষয়কোড অর্ন্তভুক্তকরনের বিষয় জানতে চাইলে আমাদের সভাপতি এক সপ্তাহ সময় নিয়ে পিএসসি’তে যোগাযোগ করবেন বলে আশ্বাস দেন।

পরে সভাপতির সাথে সাক্ষাৎ করলে তিনি পিএসসি’তে না যাওয়ার বিষটি অবহিত করেন। এমতাবস্তায় দীর্ঘদিনের আশ্বাস এবং বারবার আশা ভঙ্গের ক্ষোভ নিয়ে আমরা রাজপখে নামতে বাধ্য হয়েছি। সেই সাথে আমাদের বিষয় কোড পিএসসি’তে অর্ন্তভুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আমরা সকল প্রকার ক্লাশ ও পরীক্ষা বর্জনের সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি। আমাদের আন্দোলন চলাকালীন সময় বিভাগের কয়েকজন শিক্ষক চলতি মাসের ২২ তারিখে পিএসসি, শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফিরে এসে ৪২তম বিসিএস-এ বিষয়কোড অর্ন্তভূক্তকরনের আশ্বাস দেন। এতে করে সমস্যার সু-নির্দিষ্ট কোন সমাধান না পেয়ে আমরা কঠোর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হচ্ছি।

লিখিত বক্তব্যে আরও বলেন- আমরা যতদিন পর্যন্ত পিএসসি’তে আমাদের বিষয়কোড অনভুক্তির সর্বোচ্চ নিশ্চয়তা পাবো না, ততদিন পর্যন্ত আমাদের এই আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। এরই ধারাবাহিতায় বুধবার থেকে আমাদের বিভাগের একাডেমিক ভবন এবং প্রশাসনিক ভবনের সামনে অফিস চলাকালীন সময়ে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচী পালন করবো। এর পরেও যদি সমাধান না হয় তাহলে, পরবর্তী ৬ কর্মদিবস পরে আমরা আমরণ অনশনে যেতে বাধ্য হবো।

উল্লেখ্য, এর আগে দাবি আদায়ে বিভাগের শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন, মৌন র‌্যালি, মানববন্ধন, অবস্থান কর্মসূচি, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতীকী প্রতিবাদ জানায়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন- এম এস সোহাগ, দিলরুবা ইয়াসমিন, কেএম বারকুল্লাহ্, নুর-এ-এলাহিসহ বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের শতাধিক শিক্ষর্থী।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ