মাদারীপুরে গর্ভবতী মহিলাকে লাথি দেয়ায় হাসপাতালে ভর্তি

মাদারীপুর পৌর শহরের ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন থানতলী এলাকায় নিজের সম্পত্তিতে রান্না ঘর উঠানোর সময় বাঁধা দেন একই এলাকার দেলোয়ার মাতুব্বর। এসময় এক গর্ভবতী নারীকে লাথি দেয়ায় গুরুতর আহত হয়ে মঙ্গলবার রাতে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়। এই ঘটনায় মাদারীপুর সদর থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবার ও এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘ দিন ধরে থানতলী এলাকায় রফি মাতুব্বরের বিধবা স্ত্রী সাফিয়া বেগমের সাথে তার দেবর দেলোয়ার মাতুব্বরের বাড়ীর জায়গা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এরই সূত্রে ধরে মঙ্গলবার দুপুরে সাফিয়া বেগম ও তার সন্তান তাদের নিজস্ব জায়গায় একটি রান্না ঘর নির্মাণ করছিল। এসময় দেয়োয়ার মাতুব্বর, তার স্ত্রী লাকী বেগম ও তার ছেলে সান মাতুব্বর বাঁধা দেয়। এতেও সাফিয়া বেগম রান্নাঘর নির্মাণ কাজ করতে থাকলে দেলোয়ার মাতুব্বর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাফিয়া বেগম, তার ছেলে সোহাগ মাতুব্বর, ছেলে বউ খাদিজাকে বেগম পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে সন্ধ্যার দিকে সাফিয়ার গর্ভবতী মেয়ে সাহানা আক্তার আসলে তাকে লাথি দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় দেলোয়ার ও তার ছেলে।

পরে স্থানীয়রা সাহানা আক্তারকে উদ্ধার করে রাতে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। এছাড়াও সাফিয়া বেগমসহ আরো তিনজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এই ঘটনায় সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।
এব্যাপারে সদর থানার ওসি মো. কামরুল হাসান মিঞা জানান, ‘ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে। এই ঘটনায় আহত পরিবার মামলা দিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউকে ছাড় দেয়া হবে না।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ