ভোলা সদর ও চরফ্যাশনে ইএইচডি প্রকল্পের পক্ষ থেকে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম হস্তান্তর

ইমতিয়াজুর রহমান, ভোলা:

কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইড সহ আরো ৮ টি সহযোগী সংস্থার মাধ্যমে বাস্তবায়িত “সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর জন্য অত্যাবশ্যকীয় স্বাস্থ্যসেবা” প্রকল্পের পক্ষ থেকে ভোলা সদরে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং চরফ্যাশন উপজেলার ইউনিয়নয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র সংস্থাসমুহের জন্য করোনা সংক্রমন প্রতিরোধ সামগ্রী ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী প্রাদান করা হয়েছে। রবিবার সকালে ভোলা সদর উপজেলা মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রে এই করোনা সংক্রমন প্রতিরোধ বেক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করা হয়।

এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ভোলার উপ-পরিচালক মাহমুদুল হক আজাদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভোলা সদর মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার পারভিন আক্তার। এসময় পিএইচডি’র হেলথ্ কোর্ডিনেটর জাকির হোসেন, রেজাউল করিম ভূইয়া, আরএইচস্টেপ এর ফিল্ড কো-অর্ডিনেটর এ,কে,এম জাহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি মাহমুদুল হক আজাদ ইউকে এইড, কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড এবং পিএইচডি-কে এই করোনা মোকাবেলায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামাদি প্রদানের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন “বৈশ্বিক করোনা মহামারীর এই ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি উন্নয়ন সংস্থাসমূহের এই অংশীদারত্বমূলক উদ্যোগ উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এই সকল উপকরণ স্বাস্থ্যসেবা পেশাজীবীদেরকে সাহস ও আত্ব বিশ্বাসের সাথে তাদের মহান দায়িত্ব পালন চালিয়ে যেতে সহায়তা করবে। পরিশেষে এই এলাকার সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীই এই উদ্যোগের চুড়ান্ত সুবিধাভোগী হবে।” তিনি ইএইচডি প্রকল্পের জন্য শুভ কামনা এবং ভবিষ্যতে যে কোন প্রয়োজনে সহায়তার প্রতিশ্রুতি প্রদান করে।

ইএইচডি প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা পিএইচডি জেলা ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসের সাথে সমন্বয় করে ভোলা সদরে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং চরফ্যাশন উপজেলার ইউনিয়নয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র সংস্থাসমুহের ডাক্তার, নার্স, ওয়ার্ড বয় ইত্যাদি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী পেশাজীবীদের জন্য পিপিই আইটেম, আইপিসি ম্যাটেরিয়াল ও হ্যান্ড ওয়াশিং স্টেশন সহ ২২ প্রকারের বিভিন্ন আইটেম হস্তান্তর করা হয়।

কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড এর কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিনা রহমান বলেন, দেশের এই সংকটময় সময়ে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় এই জরুরী সহায়তা প্রদান করতে পেরে আমরা আনন্দিত। আমরা আশা করি এই উদ্যোগ কোভিড-১৯ এর কার্যক্রমে সহায়তার পাশাপাশি এটিও নিশ্চিত করবে যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীরা অন্যান্য প্রয়োজনীয় পরিষেবা প্রদানের সময় সুরক্ষিত থাকবে।”কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় প্রস্তুতি ও সহায়তা পরিকল্পনা (এনপিআরপি) কে সহায়তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশে সরকার কতৃক গঠিত স্থানীয় কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলা কমিটির সাথে সমন্বয় করে ইএইচডি প্রকল্প বরিশাল বিভাগের ভোলা, পটুয়াখালী ও বরগুনা ৩ টি জেলায় বিভিন্ন উদ্যোগ বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে যুক্তরাজ্যের দাতা সংস্থা ইউকে এইড এর সহযোগিতায় পার্টনারস ইন হেলথ্ এন্ড ডেভেলপমেন্ট (চঐউ) বরিশাল বিভাগের ৩টি জেলার মোট ৮টি উপজেলায় এই প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা হিসেবে কাজ করছে।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ