ভুল পথে… (কবিতা)

 

আপন নিবাসে বসিয়া নিরবে
কাটিতেছিল কবির প্রহর,
সেইক্ষণে এই আকাশতলে
ঘুমিতেছিল সারা শহর।
জাগিয়াছিল শত তারকা
জেগে ছিল কিছু প্রাণ,
কুঞ্জ হইতে গভীর সুরে
আসিতেছিল বেণুর তান।
সহে না প্রাণে এমন ছেদন
আঁধারে গিয়ে থামি,
হঠাৎ যেন থামিল সুর
ভুল পথে হায় আমি।

আকাশবক্ষে চন্দ্র তারকা
রয়েছে কেমনে জ্বলে!
ভুবনমাঝে আন্ধার দেশে
দিয়েছে আলো ঢেলে।
বাজিল আবার করুণ বাঁশরি
থামিল গতি মোর,
একটু চলিলে পাইবো উহারে
আন্ধার যে অতি ঘোর!
লক্ষ তারকার ক্ষিপ্ত আলোতে
সুরের পথে ভ্রমি,
একটু চলিয়া চেতনা জাগিল
ভুল পথে হায় আমি।

ঘুমায়ে আছে গাছপালা
যেন ঘুমায়ে তরুলতা,
ক্ষণিক পরেই উঠিবে জাগিয়া
বাতাস বহিলে হেথা।
অল্প আলোতে সজল দীঘিতে
ভাসিল চাঁদের ছবি,
দারুণ রূপেতে চক্ষু ভরিতে
আঁখি তুলিল কবি।
সুরখানা কেন জানি
দূরে আছে শরমি,
কাছে গেলে থেমে যায়
ভুল পথে হায় আমি।

নিবিড় আঁধারে বংশী বাজায়ে
ডাকিলে কাছে মোরে
ডাহিনে তোমার তরঙ্গমধুর
কোথায় আছিস ওরে।
এই সুরে মোরে বাঁধিয়া লহ
সংসারে কর ছেদ,
বিশ্বতনুতে তোমার আসন
আলোকে কর ভেদ।
চরণদুটি যখন যেখানে
আমি তব সহগামী,
একটু চলিয়া ভাবিয়া দেখি
ভুল পথে হায় আমি।

গভীর সুরে কাঁপিয়া উঠিল
প্রাণ মম হরষে,
কর তব সুর সঞ্চার
বিশ্বমাঝে দিবসে।
সুরের ভুবনে তোমার সুরে
বিষাদ গেছে মুছিয়া,
গুণী তোমার দেখা যেন
আলোকে পাই খুঁজিয়া।
বেণুর সুরে মুগ্ধ করিয়া
আড়ালে কেন তুমি?
ক্ষণেক পরেই ভাবিয়া দেখি
ভুল পথে হায় আমি।

স্নিগ্ধ আলো আঁখি ‘পরে পরিলে
অবাক হয়ে দেখি-
রাতের আঁধার কাটিল কেমনে
সকাল হইল একি!
ক্ষণকাল পরে বুঝিনু শেষে
এ তবে মোর স্বপন,
ঘুমের ঘরেও তাহারে আমি
করিতে নারি আপন।
কি চাহে প্রাণ মোর
জানে অন্তর্যামী,
ছিলাম তবে সেদিন স্বপনে
ভুল পথে হায় আমি।

 

কবি:  তুষার

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ