টেক্সাসে বন্দুকধারীর হামলা, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নিন্দা

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের এল পাসো শহরের ওয়ালমার্টে বন্দুকধারীর হামলায় ২০ জন নিহত হয়েছেন। এই হামলায় আহত হয়েছেন অন্তত ২৬ জন। হামলায় জড়িত সন্দেহে এক শ্বেতাঙ্গ যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে এফবিআই। হামলাকে কাপুরুষোচিত আখ্যা দিয়ে গভীর নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

স্থানীয় সময় শনিবার সকাল দশটা উনচল্লিশ মিনিট। ক্রেতা-বিক্রেতায় পূর্ণ টেক্সাসের এল পাসো শহরের ওয়ালমার্ট শপিং মল। হঠাৎ বন্দুক নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায় এক বন্দুকধারী। শুরু হয় ছোটাছুটি। মুহূর্তেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়। বন্দুকধারীর হামলায় হতাহত হন বেশ কয়েকজন।

এক ক্রেতা জানান, মূল্য পরিশোধের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। ঠিক তখনই এক ব্যক্তি দৌঁড়ে এসে গুলি চালায়। আমি হামলাকারীর মুখ দেখিনি। তবে সে কালো পোশাক পরে ছিল আর অনবরত গুলি করছিল।

ঘটনার পরপরই পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ। আটক করা হয়  প্যাট্রিক ক্রুসিয়াস নামের শেতাঙ্গ এক যুবককে। পুলিশ জানায়, তার বয়স ২১ বছর। তিনি টেক্সাসের ডালাস শহরের বাসিন্দা। ধারণা করা হচ্ছে, ওই শেতাঙ্গ যুবক একাই এই হামলা চালিয়েছেন। সন্দেহভাজন ওই হামলাকারীকে কারাগারে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে তার হামলার কারণ সম্পর্কে এখনো কোন তথ্য দেয়নি পুলিশ।

এল পাসো শহরের পুলিশ প্রধান জর্জ এলেন বলেন, এটা একটি ঘৃণ্য হামলা। এফবিআই হামলার কারণ অনুসন্ধানে ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে। আশা করি আটক হওয়া সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পরই বিস্তারিত জানা যাবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে একটি উদ্দেশেই হামলা চালানো হয়েছে।

হামলায় আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তবে হতাহতদের পরিচয় সম্পর্কে এখনো কোন তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

এদিকে নৃসংশ এই হামলার পর এই টুইটে একে কাপুরুষোচিত আখ্যা দিয়ে গভীর নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিরীহ মানুষদের হত্যা কোন অবস্থাতেই মেনে নেওয়া হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ