গাজীপুরের চার খুনের ঘটনায় ৩ পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার; বহাল ওসি

গাজীপুর জেলার শ্রীপুরের তেলিহাটি ইউনিয়নের আবদার গ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী ও তিন সন্তানকে ধর্ষণ এবং খুনের ঘটনায় যথাযথ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার কারণে গাজীপুরের শ্রীপুর থানার দুই পরিদর্শক ও এসআইকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে থাানার ওসি বহাল তবিয়তে থাকায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) দুপুর সোয়া ২টার দিকে প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গাজীপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) শামসুন্নাহার পিপিএম।

তারা হলেন- পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা, পরিদর্শক (অপারেশন) মো. তারিকুজ্জামান ও এসআই মো. আবু জাফর মোল্লা।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছেন, শ্রীপুরের জৈনাবাজার কলেজ মোড় এলাকায় গত ২২ এপ্রিল রাতে নৃশংসভাবে চারজনকে খুনের ঘটনায় যথাযথ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার কারণে ওই কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করা হয়েছে। ঘটনার পর পিবিআই ও র‌্যাব আসামীদের গ্রেফতার করে মামলার রহস্য উদঘাটন করে কিন্তু শ্রীপুর থাান পুলিশ কিছুই করতে পারেনি।

সূত্রের তথ্য মতে, মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় পুলিশ সুপার (এসপি) শামসুন্নাহার তাদের প্রত্যাহার করে জেলার পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করেন। তখন বিষয়টি অস্বীকার করে এসপি বলেছিলেন, এটি পুলিশের অভ্যন্তরীণ রেগুলার রদবদল। তাদের বদলি করে সেখানে অন্যদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে তাদের পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেছিলেন।

একাধিক সূত্র বলছে, শ্রীপুর থানার ওসি লিয়াকত আলীর বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। কোন থানা এমন লোকহর্ষক ঘটনার রহস্য উদঘাটনে ব্যর্থ হলে প্রথমেই থানার ওসিকে দায় নিতে হবে। তারপর অন্যরা। কারণ ওসির কথা ছাড়া কোন কাজ হয় না থানায়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে কেন এমন হল তা জানা যায়নি।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ