করোনাভাইরাস: মাদারীপুরের সাথে বরিশালের যোগাযোগ বন্ধ

 

জাহিদ হাসান, মাদারীপুর প্রতিনিধি:

করোনাভাইরাস সংক্রমন এড়াতে মাদারীপুরের সাথে দক্ষিণাঞ্চলের জেলা বরিশালের সাথে যোগাযোগের ঢাকা বরিশাল মহাসড়ক ছাড়া সকল পথ বন্ধ করে দিয়েছে বরিশাল প্রশাসন।

সোমবার দুপুর থেকে কালকিনি উপজেলার কয়েকটি সিমান্তবর্ত্তী রুটের সংযোগস্থলে বাঁশ-কাঠ দিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার সাথে বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলার সীমান্তবর্তী নতুন টরকি থেকে রমজানপুর রাস্তার বড় ব্রিজ,গৌনদীর লঞ্চ ঘাট থেকে চর পালড়দী খেয়া ঘাট, ঘোষেরহাট বাজার থেকে খাজুড়তলা হাট ব্রিজ, আগৈলঝাড়া-মাদারীপুর রাস্তার খাঞ্জাপুর বড় ব্রীজ সহ ছোট বড় ব্রিজ, কালর্ভাট, হাটা পথ, নদী পথ সহ বাঁশ সাঁকোর সকল যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দিয়েছে বরিশাল প্রসাশন। এতে করে দুই জেলার সিমান্তবর্ত্তী হাট বাজার গুলিতে নিত্য প্রয়োজনীয় বাজার গুলি লেনদেন করতে হচ্ছে বেড়ার মধ্য দিয়ে।

ডাসার থানার ওসি মো ওহাব মিয়া জানান, ‘গৌনদী থানার পুলিশ কাজীবাকাই বাজারে এসে আমাদের সহযোগিতায় সবাইকে জড়ো হতে না করে গিয়েছে। ওসব এলাকার লোকজনকে তাদের এলাকায় প্রবেশে বাঁধা দিচ্ছে। আমরাও চেষ্টা করছি সাধারণ মানুষকে জড়ো না হতে। তাদের নিজের এলাকায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর্রামশ দিচ্ছি। এই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা আইনগতভাবে করা হয়নি, মানুষকে সচেতন করতে করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মাদারীপুরে করোনা ভাইরাসে মোট ৩৩৭ জন কোয়ারেন্টিনে আছে। যার মধ্যে হোম কোয়ারেন্টিনে ২৮৭ জন এবং হাসপাতালের কোয়ারেন্টিনে আছে ৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে হোম কোয়ারেন্টিনে আছে ৬৫ জন। সদর হাসপাতালের আইসলেশনে আছে ৩ জন। এ পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টিন থেকে রিলিজ পেয়েছেন ২৮৭ জন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন অফিস।

এদিকে প্রবাসীদের আনাগোনা হওয়ায় মাদারীপুরে ফাস্টফুড ও চাইনিজ রেষ্টুরেন্ট বন্ধ করেছে দিয়েছে মালিকপক্ষ। জেলার সকল বিনোদন কেন্দ্রগুলো এখন মানুষ শূণ্য হয়ে পড়েছে। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া শহরের কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেখা যায়নি। রাস্তায় বিভিন্ন ধরনের ছোট-বড় যানবাহনের সংখ্যাও অনেক কম। মানুষ চরম আতঙ্গের মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করছে।

গৌনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমন এড়াতে মাদারীপুরের সঙ্গে গৌড়নদীর সকল সিমান্তবর্ত্তী সংযোগ সড়ক সাময়িক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে তবে ঢাকা বরিশাল মহাসড়ক খোলা আছে।

কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা.আমিনুল ইসলাম বলেন,ইতিমধ্যে আমরা যে সমস্ত দোকানে জনগনের ভির হয় ঐ সমস্ত দোকান পাট বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দিয়েছি এবং আমরা মাঠে তদারকি করছি।

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ