কথোপকথন (কবিতা)

 

কে তুমি?

আমি ধর্ষক, আমি আমার জগতে অধিরাজ;

আমি লুটি তাদের সম্ভ্রম আমার নাই চক্ষুলাজ।

আমি ফেলি পদচিহ্ন তোমাদের শীরধারে,

আমার জম্ম নয় ক্ষণিকের অন্ধকারে।

তোমার লোচণ স্বাক্ষী সেদিন বাসের ভীড়ে,

দিয়েছিলাম চুচুকে খোঁচা কেঁদে ছিল সে বিড়-বিড়ে।

ভাবছিলে তুমি, মন্দ আমি তুমি মহাজন,

বোনের আর্তনাদে নিশ্চুুপ থাকে কোন জন?

বিদ্যাপীঠে কৌপীনের ফিতা নিয়ে যবে করেছি উল্লাস,

নিরবে দেখেছো করোনি তো কবু মোরে উপহাস।

এমন হাজারো চিত্র দেখেও করেছো না দেখার ভান,

ঠিক তখনি,তখনিই হয়েছিলো মোর উত্থান।

অপরাধে যে নিশ্চুপ থাকে সে নয়তো নরান্তক,

বেলা শেষে আমিই কেবল খাতক??

নিশ্চুপ সেই তুমি কোথায় পেলে এত চেতক,

আমি যদি হই অপরাধী তুমি তার গুনিতক।

আজ যতই তুলো হাঁক আমাকে করতে বিদায়,

আমি সদা উজ্জীবীত বিরাজ করিবো সর্বদায়

তবে কী তোমায় রুক্ষবে এমন কেউ নেই?

হা হা হা, আমি অবিনশ্বর আমার অবনীতে,

আমায় রুক্ষবে আছে কে এমন ধরনীতে।

কোথায় নেই আমি আজ

কখনো পিতা,কখনো প্রেমিক,কখনো বা ভাই,

কখনো বা শিক্ষক কখনো বা বন্ধু রুপে বদলাই।

এই তো কেবল স্বজন আরো কত দূর জনে করি আমি বাস,

এই সমাজ আজ আমায় করেছে সমাজপ্রতি কে করিবে হ্রাস।

আমি আজ মসজিদের ইমাম কিবা মন্দিরের পুরোহিত,

যতদিন বদ্ধ থাকিবে ধর্মগ্রন্থ গুলো ততদিন হবে আমার জিত।

তবে কী তুমি অমর?

না। তবে,

যতদিন এই সমাজে পাশ্চাত্যের আধুুনিকতা থাকিবে,

যতদিন ধর্মকে পুঁজি করে ধর্ম ব্যবসায়ীরা

হাঁকিবে।

ওড়ানা হীজাব আর স্কাট নিয়ে কাঠমোল্লা বয়ান রাখিবে,

নৈতিকতার নামে অনৈতিকতার বাণী বাঁধিবে,

ধর্মের বাণী গুলো লোকচক্ষুর আড়াঁল করিতে ঢাকিবে।

ততদিন আমি করিবো বাস,

আরবের শাসক কিবা রাবণের রুপে নিয়ে শ্বাস।।

 

কবি: সাকিব মাহমুদ

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ