উচ্চিশক্ষায় তুরস্কে যাচ্ছেন ইসলামী  বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৯ শিক্ষার্থী

রাকিব হোসেন, ক্যাম্পাস প্রতিনিধি:

তুরস্কের তিনটি বিশ্বিবিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাচ্ছেন ইসলামী  বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ৮৯ জন শিক্ষার্থী। একই সাথে গবেষণারও সুযোগ পাচ্ছেন বিশ^বিদ্যালয়ের ৫৫ জন শিক্ষক।

ইন্টার ন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের আয়োজনে সোমবার বেলা ১২ টায় বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সভাকক্ষে এক উন্মুক্ত মতবিনিময় সভায় এ তথ্যটি জানা যায়।

তথ্য সূত্রে, তুরস্কের ইগদির, চানকিরি কারাতেকিন ও কাফকাস বিশ্বিবিদ্যালয়ের সাথে ইসলামী বিশ্বিবিদ্যালয়ের সমোঝতা চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী বিশ্বিবদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ১৪৪ জন শিক্ষক-শিক্ষার্থী তাদের পড়াশোনা ও গবেষণার সুযোগ পাবে। প্রাথমিকভাবে তাদের বিভাগের সভাপতির মাধ্যমে মনোনীত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা এই আবেদন করতে পারবে। পরে তুরষ্কের বিশ^বিদ্যালয়গুলো তাদের মনোনিত করবেন।

একই নিয়মে তুরস্কের বিশ্বিবিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে পড়ার সুযোগ পাবেন। শিক্ষার্থীরা ৫ মাস, শিক্ষকরা ১৪ দিনের পড়াশোনা ও গবেষণার সুযোগ পাবেন। মেভলোনা এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম প্রোটোকলের আওতায় এই উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা সম্পাদন করতে পারবেন তারা। উভয় বিশ্বিবিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের এই পড়াশোনার সকল ব্যায় বহন করবে মেভলোনা এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম।

ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের পরিচালক শাহাদাৎ হোসেন আজাদের সঞ্চালনায় সভায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি ও শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। এসময় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, ‘যেকোন প্রতিকূলতা পেরিয়ে আমরা ৮৯ শিক্ষার্থী ও ৫৫ জন শিক্ষককে তুরস্কে পাঠাব। তিনি বিভাগের সভাপতিদেরকে নির্দেশ দেন যারা ইসলামী বিশ্বিবিদ্যালয়কে রিপ্রেজেন্ট করতে পারবে তাদেরকে নির্বাচন করার জন্যে। এতে বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিকরণের পথে একধাপ এগিয়ে যাবে।’

 

পাঠকের মতামত

আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ